রবিবার, জুলাই ২৫, ২০ ২১
ডাক্তার মোহাম্মদ আবু তাহের
২ মার্চ ২০ ২১
১১:২১ অপরাহ্ণ

স্টুডেন্ট ভিসা সুখবর নয়, বিপদ
আজ থেকে বছর পাঁচেক আগে একবার স্টুডেন্ট ভিসায় লন্ডন এসেছিলেন হাজার হাজার ছাত্র।তারা তখন বেশীর ভাগ ভুয়া কলেজের নামে এসে পার্কে- মসজিদ-রাস্তায় ছিলেন। তাদের বড় অংশ লন্ডনে থাকতে না পেরে ট্রাকে - লরিতে - সব্জির গাড়িতে জীবনের ঝুকি নিয়ে ফ্রান্স গিয়েছেন। সেগুলো নিয়ে মহাকাব্য্ লেখা যাবে। রেষ্টুরেন্টে থাকার জন্য্ দুই বেলা খাবারের জন্য ফ্রি কাজ করেছিলেন মাসের পর মাস। কারন লন্ডনে খেয়ে না খেয়ে থেকে কঠিন সময় পার করেছিলেন তখন তারা। ইদানিং আবার স্টুডেন্ট ভিসায় অনেকে সন্তানদের লন্ডন পাঠাচ্ছেন। কেউ কেউ মেয়েদের ও পাঠাচ্ছেন। ছবি দেখি ফেসবুকে, আর উ্যকন্ঠাবোধ করি।। যা সহজে পাওয়া যায় সেখানে সমস্যা থাকে। সহজ হিসাব। কেন বৃটিশ ভিসা এত সহজ হয়ে গেল? খুজ রাখুন।। বৃটিশরা না বুঝে কিছু করে না। মহামারির সময় আপনার সন্তান কে ঢেকে নিয়ে গিয়ে ফ্রি পড়াবে? তাদের কে আগুনে নিক্ষেপ করছেন। শুনতে খারাপ লাগবে। লন্ডন পুরোটাই ভেঙ্গে পড়েছে অর্থনৈতিক ভাবে। যারা লন্ডনে আছেন পরি্বার পরিজন নিয়ে,তারাও মানবেতর জীবন কাটাচ্ছেন। রেষ্টুরেন্ট / উবার করে যারা জীবন যাপন করতেন তারা চাকুরীহীন। সেখানে ১৭/১৮ /১৯ বছরের কলেজ পড়ুয়া দের পাঠাচ্ছেন উচ্চ শিক্ষার্থে। এখন কেউ কাউকে বাসা বাড়ীতে এক্সেস দেয় না। কোথাও কাজকর্ম নাই। এরা যদি বলে তারা স্কলারশিপ পাবেন। তাহলে কিভাবে বিশ্বাস করি লন্ডনের কলেজ ইউনিভার্সিটি ঢেকে এনে ফ্রি পড়াবে।। তাদের ফ্যাকাল্টি বন্ধ করতে হচ্ছে । অনেক প্রফেসর জব লেস। অনেক কলেজ অর্থ সংকটে। টিকে থাকতে পারবে না। পৃথিবী আগের মত নয়,আগের অবস্থায় যাবেও না। কলেজ ইউনিভার্নিটি অনলাইনে চালু থাকবে , কারন এতে খরছ কম। সেখানে ভিসা দিয়ে নিয়ে এসে ফ্রি পড়াবে কেন? বছরে ১২ হাজার পাউন্ড টিউশন ফী, থাকা খাওয়া অনেক খরছ সহ ১৫ হাজার পাউন্ড লাগে । কেন ইউনিভার্সিটি অনলাইনে কম খরছে পড়াতে পারলে বিদেশ থেকে স্টুডেন্ট এনে, একোমোডেশন দিয়ে পড়াবে?৷ হিসাবটা কি মিলে মিলবে।। অনলাইনে সব কিছুই কনভার্ড হয়ে গেছে। সবাই অভ্যস্থ হয়ে গেছে।। এগুলো হল ষ্টুডেন্ট রা আসবে ১২ হাজার পাউন্ড / ১৪ হাজার পাউন্ড দিবে সেই টাকায় ইউনিভার্নিটি চলবে। পরিচিত অনেকেই যাচ্ছেন। অনেকেই যাবার পথে। এটা কোন সুখবর নয়।। সারা যুক্তরাজ্য্ গভীর সংকটে। সেখানে উচ্চতর পড়াশুনার জন্য্ কোমলমতি কলেজ পড়ুয়াদের বিদেশ পাঠাচ্ছেন। এই সহজে প্রাপ্ত ভিসাটা কোন সুখবর নিয়ে আসবে না। আত্বীয় স্বজনরা কোন হেল্প করতে পারবেন না। হয়ত ২০/৫০ পাউন্ড দিবেন মাঝে মাঝে? আত্বীয় স্বজনরা দেশে বলতেও পারছেন না৷ তাদের পাঠিও না। কারন সেখানেও ভুল বোঝাবুঝি র ব্যাপার জড়িত। কিন্তুু এর পর কি হবে। রেষ্টুরেষ্টে ইন্ডাষ্ট্রিতে হাজার হাজার বেকার। রেষ্টুরেন্ট টেইক ওয়ে সিষ্টেমে চলে, সেখানে ওয়েটার রা খেয়ে না খেয়ে দিন যাপন করছেন। পার্ট টাইম কাজ যে করবে সেই সুযোগ কই। দেশ থেকে ১৪/১৫ হাজার পাউন্ড এনে পড়তে হবে। মানে ১৫ লাখ বছরে? উবার / ট্যাক্সি ব্যবসা নেই? টুরিষ্ট নাই। ইংল্যান্ডে যারা উবার, লিফট, ট্যাক্সি করেন তারাও বেকার। ইংল্যান্ড এক গভীর সংকটে আটকে আছে। একটু ভেবে দেখা উচিত। লেখক,ডাক্তার মোহাম্মদ আবু তাহের।
ফেইসবুক কমেন্ট অপশন
এই বিভাগের আরো খবর
পুরাতন খবর খুঁজতে নিচে ক্লিক করুন


আমাদের ফেসবুক পেইজ