শুক্রবার, ডিসেম্বর ২, ২০ ২২
দক্ষিণ সুরমা প্রতিনিধি::
২৩ ডিসেম্বর ২০ ১৮
১০ :৩০ অপরাহ্ণ

অর্ধশতাধিক নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে পুলিশের মামলা দায়ের
নির্বাচনী প্রচারণাকালে লালাবাজারে ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষ

সিলেট -৩ আসনে ঐক্যফ্রন্ট মনোনীত প্রার্থী আলহাজ¦ শফি আহমদ চৌধুরীর নির্বাচনী প্রচারণাকালে দক্ষিণ সুরমার লালাবাজারে নেতাকর্মীদের সাথে পুলিশের সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। আজ ২৩ ডিসেম্বর রবিবার সন্ধ্যা সাড়ে সাতটার দিকে লালাবাজার বাজারে নির্বাচনী প্রচারণা করতে গেলে পুলিশের সাথে সংঘর্ষ বাধে।

এ ঘটনায় ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মী ও পুলিশের নিকট থেকে পরস্পর বিরোর্ধী বক্তব্য পাওয়া গেছে। এদিকে ঘটনার কয়েক ঘন্টা পরই আজ রাতেই দক্ষিণ সুরমা থানায় এসল্ট মামলা দায়ের করা হয়েছে। থানার এসআই রাজীব পাল বাদী হয়ে এ মামলা দায়ের করেন বলে জানা গেছে। মামলা নং-১৫/১৮। মামলায় ৫৮ জন নেতাকর্মীর নাম উল্লেখপূর্বক আরো অনেককে অজ্ঞাতনামা আসামী করা হয়েছে। জানা যায়, আজ রবিবার সন্ধ্যা ৭টার দিকে লালাবাজার এলাকায় নিজেদের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারাণায় নামেন দক্ষিণ সুরমা উপজেলার ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীরা।

এসময় দক্ষিণ সুরমা থানার একদল পুলিশ লালাবাজার বাজারে অবস্থান করছিল। পুলিশের উপস্থিতি দেখতে পেয়ে নেতাকর্মীরা নানা স্লোগান দিতে থাকলে পুলিশ পেছন দিক থেকে লাটিচার্জ শুরু করে। এক পর্যায়ের পুলিশকে লক্ষ্য করে ইটপাটকেল নিক্ষেপ করেন নেতাকর্মীরা। এতে সংঘর্ষ বেঁধে যায়। এ প্রসঙ্গে জানতে চাইলে ঐক্যফ্রন্টের নেতা ও দক্ষিণ সুরমা উপজেলা বিএনপির সাবেক সাধারণ সম্পাদক তাজরুল ইসলাম তাজুল বলেন, লালাবাজার ইউনিয়ন অফিসের সামনে থেকে আমরা আমাদের প্রার্থীর পক্ষে শান্তিপূর্ণভাবেই প্রচারণা শুর করি। প্রচারণা চালানোর এক পর্যায়ে হঠাৎ করেই পুলিশ এসে আমাদের উপর হামলা করে।

তিনি বলেন, এ দেশে গণতন্ত্রকে গলাঠিপে হত্যা করেছে ক্ষমতাসীনরা। তাই আবার ক্ষমতায় আসতে তারা বিরোধী পক্ষের প্রার্থীর প্রচারণায়ও বাঁধা সৃষ্টি করছে। এমন অভিযোগ উড়িয়ে দিয়ে দক্ষিণ সুরমা থানার অফিসার ইনচার্জ খায়রুল ফজল বলেন, ঐক্যফ্রন্টের নেতাকর্মীরা পুলিশের উপস্থিতি দেখে উশৃঙ্খল স্লোগান দিতে থাকে এবং ইটপাটকেল নিক্ষেপ শুরু করে। তারা ককটেল বিস্ফোরণের মাধ্যমে আতঙ্ক সৃষ্টি করে এবং পুলিশের কাজে বাঁধা দেয়।

পরে অতিরিক্ত পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে পরিস্থিতি শান্ত করে এবং আলামত সংগ্রহ করে থানায় নিয়ে আসে। তিনি বলেন এ ঘটনায় আজ রাতেই এস আই রাজীব বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। মামলার আসামীরা হলো, দক্ষিণ সুরমা থানা বিএনপির যুগ্ন আহ্বায়ক আমিনুর রহমান চৌধুরী সিফতা, মহানগর ছাত্রদলের সাবেক প্রকাশনা সম্পাদক লোকমান আহমদ, জেলা ছাত্রদল নেতা সুহেল আহমদ, মোহন, সুলেমান, থানা বিএনপির আহ্বায়ক শাহাবুদ্দিন, সিলাম ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি জুয়েল আহমদ, জেলা যুবদল নেতা আলা উদ্দিন, যুবদল নেতা আলম, সেবুল, হুরন মিয়া, লালাবাজার বিএনপির সহ সভাপতি জয়নাল আবেদীন, ছাত্রদল নেতা জুবের আহমদ, সাদিক মিয়া, জালালপুর ইউনিয়ন ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক মো: সাকিল আহমদ, তেতলী ইউনিয়ন ছাত্রদল নেতা সানুর মিয়া, বিএনপি নেতা বাবুল মিয়া, আবুল হোসেন, তোফায়েল, দিপু খান, যুবদল নেতা তারেক আহমদসহ অনেকেই। পুলিম ঘটনার পরপর মামলার তিন নম্বর আসামী জেলা ছাত্রদল নেতা সুহেল আহমদ ও মোহনকে গ্রেপ্তার করেছে।

ফেইসবুক কমেন্ট অপশন
এই বিভাগের আরো খবর
পুরাতন খবর খুঁজতে নিচে ক্লিক করুন


আমাদের ফেসবুক পেইজ