মঙ্গলবার, জানুয়ারী ৩১, ২০ ২৩
বিজ্ঞপ্তি
২৩ জানুয়ারী ২০ ২৩
১০ :০ ৯ অপরাহ্ণ

সিলেটের ফিল্যান্সার সাহেদ আফ্রিদি‘র সফলতা এখন বিশ্বময়!

শিক্ষিত যুবকদের চাকরির পেছনে দৌড়ানোর চিত্র প্লাটানোর প্রত্যয়ে নিজের শ্রম ও মেধাকে কাজে লাগিয়ে নতুন নতুন উদ্যোগ গ্রহণের মাধ্যমে বেকারত্ব দূরীকরণ ও নিম্ন আয়ের মানুষের সার্বিক কল্যান ও দেশের অর্থনীতির চাকা গতিশীল করতে কাজ করে যাচ্ছেন সিলেটের ফিল্যান্সার সাহেদ আফ্রিদি।

যার সার্বিক তত্বাবধানে দেশের প্রায় দুই হাজারের অধিক নতুন প্রজন্ম বেকারত্ব দূরীকরন ও সফল ফ্রিল্যান্সার এবং নিজেদের ইনকামে চালাচ্ছেন পরিবারের ভরণ-পোষন।

বিগত ৫ বছরে নিজে সফল ফ্রিল্যান্সার হওয়ার পাশাপাশি বেকারত্ব দূরীকরণ ও ফ্রিল্যান্সিংয়ে উদ্যোক্তা তৈরিতে বিশেষ অবদানের জন্য ফ্রিল্যান্সার এন্ট্রাপ্রেনার ক্যাটাগরিতে রাইজিং ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড ২০২২সহ সামাজিক ও রাষ্টীয় ও আর্šÍজাতিক মাধ্যম থেকে পেয়েছেন একাধিক সম্মাননা।

জানা যায়,১৯৯৭ সালের ৩ মার্চ সিলেটে জন্মগ্রহণকরী সাহেদ আহমদ নিজের লেখা-পড়া শেষ করে চাকুরীর পিছনে না ছুটে ২০১৭ সালে প্রযুক্তি শক্তির মাধ্যমে নিজের দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে কাজ শুরু করেন বেকারত্ব দূরীকরনের।

সল্প সময়ের মধ্যই সারাদেশসহ বৃহত্তর অঞ্চলে পরিচিতি পান ফিল্যান্সার সাহেদ আফ্রিদি নামে। নিজে সফল হওয়ার পাশাপাশি দেশের হাজার হাজার তরুণ তরুণীদেরকে ফিল্যান্সিংয়ে করেছেন উদ্যোগী। ডিজিটাল বাংলাদেশকে প্রগতিশীল প্রযুক্তিতে এগিয়ে নিয়ে দেশের বেকারত্ব দূরীকরন ও সফল ফ্রিল্যান্সার গঠনে সাহেদ আফ্রিদির তত্বাবধানে প্রায় ২ হাজারের অধিক সফল ফ্রিল্যান্সারের একটি টিম দেশের অর্থনৈতিকে সমৃদ্ধ করতে ঘরে বসে বিদেশের রেমিটেন্স অর্জনে কাজ করছে।

গ্রামিন জনপদের শিক্ষিত নতুন প্রজন্মকে সফল ফ্রিল্যান্সার বানানোর কারিগড় সাহেদ আফ্রিদি গতবছরের ২৬ মে আইসিটি অলিম্পিয়ড বাংলাদেশ ২০২২ এর জাতীয় পর্যায়ের শ্রেষ্ট মেন্টরের স্বিকৃতি লাভ করেন।

গত ১৩ ডিসেম্বর রাজধানীর আন্তর্জাতিক মাতৃভাষা ইনস্টিটিউটে রাইজিং ইউথ ইন্সটিটিউট ও ন্যাশনাল ইউথ কেরিয়ার কার্ভিনালের পক্ষ থেকে অনুষ্ঠিত রাইজিং ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড ২০২২ সম্মাননা পেয়েছেন তিনি।

সাবেক সংস্কৃতিক মন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর ও বাংলাদেশ হাইটেক পার্কের ম্যানেজিং ডিরেক্টর ড. বিকর্ণ কুমার ঘোষ পিক্সেল হাট এবং পেন কনসাল্টের প্রতিষ্ঠাতা প্রধান নির্বাহী সাহেদ আহমেদ (আফ্রিদি) হাতে এ সম্মাননা অ্যাওয়ার্ড তুলে দেন । সাহেদ আফ্রিদি বলেন,উদ্যোক্তা হতে হলে বেশি বেশি শ্রম,মেধা ও অধ্যবসায়ের প্রয়োজন হয়। তাই ব্যর্থতার ভয়ে কেউ উদ্যোক্তা হতে চায় না।

অন্যদিকে, চাকরিহীন শিক্ষিত যুবক-যুবতিদের পরিবার ও সমাজ বোঝাস্বরূপ আখ্যায়িত করায় আমাদের নতুন প্রজন্ম উদ্যোক্তা হতে আগ্রহী না হয়ে এখনও চাকরির পেছনেই দৌড়াচ্ছে। আসলে প্রতিটি সফলতার পেছনেই শত ব্যর্থতার গল্প রয়েছে। ফিল্যান্সিং এমন একটি পেশা যেখানে শুধুমাত্র নিজের দক্ষতাকে কাজে লাগিয়ে যেকেউ অতি সহজে নিজের সফলতার পাশাপাশি দেশে অর্থনীতি অবদান রাখতে পারে।

তাই চাকরি হোক কিংবা নাই বা হোক,উদ্যোক্তা হওয়ার মাধ্যমে বেকারতত্বের ব্যাধি থেকে বেরিয়ে এসে আগামী দিনে জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রাকে মাথায় রেখে বাংলাদেশর তরুণ সমাজকে প্রযুক্তির ওপর দক্ষতা-বৃদ্ধি এবং বেকারত্ব দূর করতে উৎসাহ হিসেবে কাজ করে যাচ্ছি।

যার ফলসরুপ প্রতিটি সম্মাননা আমাকে ইউথদের বেকারত্ব দূরীকরনের শক্তি যোগাচ্ছে।দেশের বেকারত্ব দূরীকরনের আমার ও আমাদের এই যুদ্ব অব্যাহত থাকবে।

ফেইসবুক কমেন্ট অপশন
এই বিভাগের আরো খবর
পুরাতন খবর খুঁজতে নিচে ক্লিক করুন


আমাদের ফেসবুক পেইজ