শনিবার, অক্টোবর ১, ২০ ২২
কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধি ::
২০ সেপ্টেম্বর ২০ ২২
৯:৩৮ অপরাহ্ণ

নদী থেকে বালু তোলায় হুমকিতে চাটিবহর গ্রাম

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার পিয়াইন নদী থেকে অবৈধভাবে বালু তোলা হচ্ছে। এতে নদীপাড়ের গ্রাম চাটিবহর হুমকির মুখে পড়েছে। বালু তুলছেন চাটিবহর গ্রামেরই প্রভাবশালী কিছু লোক। এ বিষয়ে প্রতিকার চেয়ে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের কাছে লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন গ্রামের আরেকটি পক্ষ।

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, প্রভাবশালী মহলটি দীর্ঘদিন ধরে অবৈধভাবে নদী থেকে বালু উত্তোলন করছেন। চাটিবহর গ্রাম ঘেঁষে বালু উত্তোলন করায় হুমকিতে পড়েছে গ্রামের মসজিদ, ঈদগাহ, কবরস্থান ও বাড়িঘর। ইতিমধ্যে গ্রামের বিভিন্ন অংশে ভাঙন দেখা দিয়েছে। গ্রামের সাধারণ লোকজন বাঁধা দিলে তাদেরকে হামলা-মামলাসহ বিভিন্ন প্রকার ভয়ভীতি প্রদর্শন করা হয়।

তাই বাঁধা দেওয়ার সাহস কেউ করেন না। অভিযোগে আরও উল্লেখ করা হয়, পিয়াইন নদীতে বালুবোঝাই জাহাজ ও বলগেট থেকে প্রতিদিন চাঁদা আদায় করছে এই মহল। অবৈধ এসব কাজের নেতৃত্ব দিচ্ছেন চাটিবহর গ্রামের বশির আহমদ মেম্বারের পুত্র জুয়েল আহমদ, বাদশা মিয়ার পুত্র শামীম আহমদ ও সুনু মিয়ার পুত্র আলিম উদ্দিন।

চাঁদার টাকা গ্রামের প্রভাবশালী বশির আহমদ, সুজন মিয়া, খুরশিদ আলী, লুৎফুর রহমান, রব্বানী ও ফুল মিয়া সহ ২০-২৫ জনের দল ভাগবাটোয়ারা করে নেন। চাটিবহর গ্রামের কবির আহমদ, আব্দুল মতিন, হাকিম, রশিদ, জৈন উদ্দিন ও কুতুব উদ্দিনসহ অভিযোগকারীরা জানান, উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন ড্রেজার মেশিন দিয়ে বালু তোলার কারণে ইতিমধ্যে গ্রামের একটি অংশ নদীগর্ভে বিলীন হয়েছে। গত কয়েক বছর ধরে প্রতি বর্ষা মৌসুমে বালু উত্তোলন করছে প্রভাবশালী মহলটি।

প্রতিবারই উপজেলা প্রশাসনের দ্বারস্থ হন গ্রামের সাধারণ মানুষ। কিন্তু, অবৈধ এই বালু উত্তোলন বন্ধে আজ অবধি উপজেলা প্রশাসন কার্যকর কোন পদক্ষেপ নেননি।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার লুসিকান্ত হাজং জানান, চাটিবহর গ্রামবাসীর দেওয়া অভিযোগ পেয়েই ঘটনাস্থলে সার্ভেয়ার এবং তহশিলদারকে পাঠানো হয়। ইজারা গ্রহীতাকে সতর্ক করা হয়েছে। অবৈধভাবে বালু উত্তোলন বন্ধের জন্য পুলিশ প্রশাসনকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

ফেইসবুক কমেন্ট অপশন
এই বিভাগের আরো খবর
পুরাতন খবর খুঁজতে নিচে ক্লিক করুন


আমাদের ফেসবুক পেইজ