শনিবার, এপ্রিল ২০ , ২০ ২৪
স্টাফ রিপোর্ট::
২৬ ফেব্রুয়ারী ২০ ২৪
৭:১৯ অপরাহ্ণ

সংবাদ সম্মেলনে যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধার অভিযোগ
জগন্নাথপুরে মসজিদের জমি দখলে নিতে কমিটির ওপর সংঘবদ্ধ হামলা

জগন্নাথপুর পৌর এলাকার হরিহরপুর জামে মসজিদের জমি দখলে নিতে মুতাওয়াল্লিসহ মসজিদ কমিটি নেতাদের ওপর হামলার ঘটনা ঘটেছে।

সংঘবদ্ধ এ হামলার ঘটনায় মামলা দায়ের করায় আসামিরা জামিন নিয়ে এখন পাল্টা হুমকি দিচ্ছেন। এতে নিরাপত্তাহীনতায় ভোগছেন ¯ানীয়রা।

সোমবার সিলেট প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে এমন অভিযোগ করেছেন মসজিদের মুতাওয়াল্লি যুদ্ধাহত বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদির।

লিখিত বক্তব্যে তিনি জানান, সংঘবদ্ধ এই চক্র মসজিদ গত ১৭ ফেব্রুয়ারি সকাল ৯টার দিকে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে আমাদের কমিটির লোকদের ওপর হামলা চালায়।

এতে আমি নিজে এবং ভাতিজা গুরুতর আহত হলে প্রথমে জগন্নাথপুর মেডিকেলে এবং পরে শারীরিক অব¯ার অবনতি হওয়ায় সিলেট এম.এ.জি ওসমানী মেডিকেলে ভর্তি করা হয়।

এ ঘটনায় আমরা জগন্নাথপুর থানায় মামলা দায়ের করি। তিনি অভিযোগ করেন, ‘সিলেট ওসমানী মেডিকেলে চিকিৎসাধীন থাকা অব¯ায় আসামিরা কোর্ট থেকে জামিন নিয়ে নেয়। মুক্ত হয়ে তারা আমি ও আমার পরিবারের লোকজনকে মামলা তোলে নেওয়ার জন্য বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে।

বর্তমানে আমি ও আামার পরিবারের লোকজন নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছি।’ তিনি জানান, হরিহরপুর জামে মসজিদের ভূমি মৃত হাজী আব্দুর রশিদ দান করেছেন। তিনি ১৯৯৮ সালে মসজিদ ও একটি মাদরাসা নির্মাণের জন্য জমি দান করেন।

এ বিষয়ে দায়িত্ব পালনের জন্য তার পুত্র ও পরিবারের সদস্যদের নিয়োজিত করেন। তার দিকনির্দেশনায় মাদরাসার ওজুখানা, বাথরুম ইত্যাদি প্রয়োজনীয় ¯াপনাসহ যাবতীয় কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। কিš, মসজিদ কমিটির কার্যক্রমে ঈর্ষান্বিত হয়ে এবং মসজিদের ভূমি ব্যক্তিগত স্বার্থে ব্যবহারে উদ্দেশ্যে মসজিদ ও মাদাসাকে পৃথক করার চেষ্টা করছে একটি চক্র।

হরিহরপুরের মুহিত মিয়া, সাইফুল মিয়া, দবির নিয়া, আব্দুল মতিন, আব্দুস শহিন, ফখরুল ইসলাম, মোস্তাকুল, রেজাউল ইসলাম নামের কয়েক সংঘবদ্ধভাবে এমন ঘৃণ্য কাজে নিয়োজিত বলে জানান তিনি। তাদের ভয়ে এলাকার মানুষ কথা বলতে সাহস পায় না।

তাদের এমন ন্যাক্কারজনক ঘটনার সুষ্ঠু বিচার এবং এলকাবাসী, মুসল্লিয়ান, মসজিদ ও মাদরাসার সম্পত্তি সুরক্ষার জন্য প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেন বীর মুক্তিযোদ্ধা আব্দুল কাদির।

ফেইসবুক কমেন্ট অপশন
এই বিভাগের আরো খবর
পুরাতন খবর খুঁজতে নিচে ক্লিক করুন


আমাদের ফেসবুক পেইজ